BCS preparation -বাঙালি জাতির ইতিহাস

BCS preparation bangladesh affairs
BCS preparation bangladesh affairs
  • বাঙালি জাতির ইতিহাস। BCS preparation

দক্ষিণ এশিয়ায় বসবাসকারী আদিমতম জাতিগোষ্ঠীর মধ্যে বাঙালি জাতি অন্যতম। বাঙালি জাতির ইতিহাস তাই বেশ পুরোনো। প্রাচীন বাঙালি জনগোষ্ঠীকে দুই ভাগে ভাগ করা হয়েছে।

যথাঃ ১. প্রাক্- আর্য বা অনার্য,  ২. আর্য নরগোষ্ঠী। খ্রীস্টপূর্ব ১৫০০ অব্দে আফগানিস্তানের খাইবার গিরিপথ দিয়ে আর্যরা ভারতবর্ষে প্রবেশ করে। এবং তারও ১৪০০ বছর পর, খ্রীস্টপূর্ব ১০০ অব্দে আর্যরা বাংলায় প্রবেশ করে।

আর্য জনগোষ্ঠী মূলত ৪ শাখায় বিভক্ত ছিলো। যথাঃ ১. নেগ্রিটো, ২. অষ্ট্রিক, ৩. দ্রাবিড় ও ৪. ভোট চীনীয়। এই অষ্ট্রিক জনগোষ্ঠী থেকেই বাঙালী জাতির প্রধান অংশ গড়ে উঠেছে।

BCS preparation প্রশ্নাবলীঃ

১। সর্বপ্রথম ‘বঙ্গ ‘ শব্দের উল্লেখ পাওয়ার কোন গ্রন্থে

ক। রামচরিত

খ। চণ্ডীমঙ্গল

গ। ঐতেরেয় আরণ্যক

ঘ। করোতয়া মহামায়ম

উত্তরঃ গ। ঐতেরেয় আরণ্যক

[ব্যাখ্যাঃ মূলত অস্ট্রিক গোষ্ঠী থেকে বাঙালি জাতির প্রধান অংশ গড়ে উঠে।

২. আর্যদের আদি বাসভূমি কোথায় ছিলো?

ক. ভারতবর্ষ।

খ. কিরঘিজ অঞ্চল।

গ. সাইবেরিয়া।

ঘ. আফগানিস্তান।

উত্তরঃ খ.

[ব্যাখ্যাঃ বিভিন্ন বিশেষজ্ঞদের বিভিন্ন মত থাকলেও অধ্যাপক ব্রান্ডেস্টাইনের মতানুসারে, ওরাল পর্বতের দক্ষিণে কিরঘিজ স অঞ্চলই ছিলো আর্যদের আদিবাসভূমি। এবং এই মতবাদকে বেশকিছু পন্ডিতই যুক্তিযুক্ত হিসেবে গ্রহণ করেছেন।]

. আর্যদের প্রাচীনতম সাহিত্য কোনটি?

ক. বেদ।

খ. ঋগ্বেদ।

গ. রামায়ন।

ঘ. মহাভারত।

উত্তরঃ ক.

[ব্যাখ্যাঃ বেদ হচ্ছে আর্যদের প্রাচীনতম সাহিত্য, যা প্রথমে লিখিত আকারে ছিলোনা। এবং চারটি বেদের মধ্যে সবচেয়ে প্রাচীন হলো ঋগ্বেদ।]

৪. ভারতের কোথায় আর্যরা প্রথম বসতি স্থাপন করেছিলো?

ক. দক্ষিণ ভারতে।

খ. বেলুচিস্তানে।

গ. পূর্ব বাংলায়।

ঘ. ভারতের উত্তর-পশ্চিম সীমান্ত অঞ্চল ও পাঞ্জাবে।

উত্তরঃ ঘ.

[ব্যাখ্যাঃ বিভিন্ন পন্ডিতগণের মতে, আর্যরা খ্রীস্টপূর্ব ১৫০০ অব্দে ভারতবর্ষে প্রবেশ করে প্রথমে আফগানিস্তান ও ভারতের উত্তর-পশ্চিম অঞ্চলে বসতি স্থাপন করে।]

৫. বাঙালি জাতির ইতিহাসকে কয়টি ভাগে ভাগ করা হয়েছে?

ক. ৪টি।

খ. ৩টি।

গ. ২টি।

ঘ. ৬টি।

উত্তরঃ খ.

[ব্যাখ্যাঃ বাঙালি জাতির ইতিহাসকে মূলত ৩টি ভাগে ভাগ করা হয়েছে। যথা- আদি বা প্রাচীন যুগ, মধ্য যুগ ও আধুনিক যুগ।]

৬. মধ্যযুগে কোন বংশের দীর্ঘস্থায়ী শাসন ব্যবস্থা চালু ছিলো?

ক. সেন বংশ।

খ. মুঘলরা।

গ. পাল বংশ।

ঘ. দাস বংশ।

উত্তরঃ গ.

[ব্যাখ্যাঃ মধ্যযুগে পাল বংশ দীর্ঘ চারশত বছর শাসন করে।]

৭. বাংলার প্রথম স্বাধীন রাজা কে?

ক. রাজা রামমোহন রায়।

খ. রাজা ভেনুগোপাল রায়।

গ. রাজা লক্ষণ সেন।

ঘ. রাজা শশাঙ্ক।

উত্তরঃ ঘ.

[ব্যাখ্যাঃ বাংলার প্রথম স্বাধীন নবাব ছিলেন রাজা শশাঙ্ক। যার রাজত্ব ছিলো সপ্তম শতাব্দীর শুরু দিকে।]

৮. মগধ রাজ্য সংগঠিত হয় কখন?

ক. খ্রীস্টপূর্ব সপ্তম শতকে।

খ. খ্রীস্টপূর্ব অষ্টম শতকে।

গ. খ্রীস্টপূর্ব দ্বাদশ শতকে।

ঘ. খ্রীস্টপূর্ব ত্রয়োদশ শতকে।

উত্তরঃ ক.

[ব্যাখ্যাঃ আর্যদের আগমনের পর বাংলা ও বিহার অঞ্চলজুড়ে মগধ রাজ্য সংগঠিত হয় খ্রীস্টপূর্ব সপ্তম শতকে।]

৯। বাংলাদেশ বসবাসকারী উপজাতিদের বড় অংশ?

ক. সেমাটিক

খ। মংগোলয়েড

গ। সেমাটিক

ঘ। ককেশীয়

উত্তরঃ ক সেমাটিক

বাংলার আদিবাসী জনগন মূলতঃ অস্ট্রিক ভাষাভাষীর

১০. ঋগ্বেদে মোট শ্লোকের সংখ্যা কত?

ক. ১০২৮ টি।

খ. ১০১৫ টি।

গ. ১০৩৮ টি।

ঘ. ১০০৮ টি।

উত্তরঃ ক.

১১. আর্য সভ্যতাকে কয় ভাগে ভাগ করা হয়েছে?

ক. ২ ভাগে।

খ. ৩ ভাগে।

গ. ৪ ভাগে।

ঘ. ৫ ভাগে।

উত্তরঃ ক.

[ব্যাখ্যাঃ আর্য সভ্যতাকে ২ ভাগে ভাগ করা হয়েছে যথা- ঋগ্বৈদিক সভ্যতা ও বৈদিক সভ্যতা।]

১২. আর্যদের প্রাচীন সাহিত্য বা ধর্মগ্রন্থ বেদের অপর নাম কী ছিলো?

ক. গ্রন্থ চিরন্তনী।

খ. ভগবত গীতা।

গ. শ্রুতি।

ঘ. দিশারি।

উত্তরঃ গ.

[ব্যাখ্যাঃ যুগ যুগ ধরে মুখে মুখে আবৃত করা হতো বেদ। ব্রাক্ষণদের মুখ থেকে বেদের বাণী শুনে পূণ্য লাভ করতো অনুসারীরা। এজন্য বেদের অপর নাম ছিলো শ্রুতি।]

১৩. বেদ কোন ভাষায় লেখা হয়েছিলো?

ক. সংষ্কৃত।

খ. বাংলা।

গ. হিন্দি।

ঘ. ঊর্দু।

উত্তরঃ ক.

[ব্যাখ্যাঃ বেদ লেখা হয়েছিলো প্রাচীন সংষ্কৃত ভাষায়। যাকে বৈদিক সংষ্কৃত বলা হয়।]

১৪. আর্য সাহিত্যের প্রথম নিদর্শন কোনটি?

ক. বেদ।

খ. ঋগ্বেদ।

গ. সামবেদ।

ঘ. যজুরবেদ।

উত্তরঃ খ.

[ব্যাখ্যাঃ বেদ হচ্ছে চার প্রকার। এর মধ্যে ঋগ্বেদ হলো সবচেয়ে প্রাচীন যাকে আর্য সাহিত্যের প্রথম নিদর্শন বলা হয়।]

১৫. সিন্ধু সভ্যতায় প্রথম আবিষ্কৃত শহর কোনটি?

ক. চান্দিগাড়।

খ. মেদিনীপুর।

গ. হরপ্পা।

ঘ. বিহার।

[ব্যাখ্যাঃ সিন্ধু সভ্যতায় প্রথম আবিষ্কৃত শহর হরপ্পা (দয়ারাম সাহানি, ১৯২১) এবং মহেঞ্জোদারো (রাখালদাশ বন্দোপাধ্যায়, ১৯৭৩-৮০)]

১৭. পরিব্রাজক ফা- হিয়েন কার শাসনামলে ভারতে আসেন?

ক. রাজা শশাঙ্ক।

খ. প্রথম চন্দ্রগুপ্ত।

গ. দ্বিতীয় চন্দ্রগুপ্ত।

ঘ. কুমার গুপ্ত।

উত্তরঃ গ.

[ব্যাখ্যাঃ চীনের পরিব্রাজক ফা হিয়েন ভারতে আসেন রাজা দ্বিতীয় চন্দ্রগুপ্তের আমলে আনুমানিক ৩৯৯ খ্রীস্টাব্দে। ]

১৮. প্রাচীনযুগে বাংলা কয়টি জনপদে বিভক্ত ছিলো?

ক. ১২টি।

খ. ১৪টি।

গ. ১৬টি।

ঘ. ১৮টি।

উত্তরঃ গ.

[ব্যাখ্যাঃ প্রাচীনযুগে বাংলা কোনো অখণ্ড রাষ্ট্ৰ ছিল না। বঙ্গ, পুণ্ড্ৰ, গৌড়, হরিকেল, সমতট, বরেন্দ্ৰ এরকম বাংলার বিভিন্ন অংশগুলো প্ৰায় ১৬টি জনপদে বিভক্ত ছিল।]

১৯. বাংলাদেশের সর্বপ্রাচীন জনপদ কোনটি?

ক. হরিকেল।

খ. বঙ্গ।

গ. সমতট।

ঘ. পুন্ড্র।

উত্তরঃ ঘ.

[ব্যাখ্যাঃ পুন্ড্র হলো বাংলার সবচেয়ে প্রাচীন জনপদ। বগুড়া, রাজশাহী, রংপুর ও দিনাজপুর জেলার অবস্থানভূমিকে কেন্দ্র করে গড়ে উঠে পুণ্ড্র জনপদ।]

২০. বরেন্দ্র শব্দের উৎপত্তি কোথা থেকে?

ক. বারিন্দ্র।

খ. বারিন্দ্রী।

গ. বারিন্দ্রা।

ঘ. বরীন্দ্র।

উত্তরঃ খ.

[ব্যাখ্যাঃ সে সময় উত্তরবঙ্গকে পাল রাজারা তাদের পিতৃভূমি বলে মনে করত। তাই তারা এর নামকরণ করেছিল বারিন্দ্রী। বরেন্দ্র শব্দের উৎপত্তি এই বারিন্দ্র শব্দ থেকেই।]

২১. প্রাচীন পুন্ড্ররাজ্যের রাজধানী ছিলো কোনটি?

ক. বরেন্দ্রভূমি।

খ. বঙ্গ।

গ. পুন্ড্রনগর।

ঘ. উপরের কোনোটিই নয়।

উত্তরঃ গ.

[ব্যাখ্যাঃ পুন্ড্রের রাজধানী ছিলো পুন্ড্রবর্ধন বা পুন্ড্রনগর।]

২২. ভারতে প্রথম মুসলিম শাসন শুরু হয় কবে থেকে?

ক. ৭১১ খ্রীস্টাব্দে।

খ. ৭১২ খ্রীস্টাব্দে।

গ. ৭১৩ খ্রীস্টাব্দে।

ঘ. ৭১৪ খ্রীস্টাব্দে।

উত্তরঃ খ.

[ব্যাখ্যাঃ ৭১১ খ্রীস্টাব্দে ভারতে প্রথম মুসলিমরা আক্রমণ করে এবং শাসন শুরু করে বাগদাদের শাসক মুহাম্মদ বিন কাশিম সিন্ধু প্রদেশের শাসক দাহিরকে পরাজিত করার মাধ্যমে।]

২৩. বাংলা কবে মুসললানদের দখলে আসে?

ক. ১২০২ সালে।

খ. ১২০৩ সালে।

গ. ১২০৪ সালে।

ঘ. ১২০৫ সালে।

উত্তরঃ গ.

[ব্যাখ্যাঃ ইখতিয়ার উদ্দিন মুহাম্মদ বিন বখতিয়ার খিলজী ১২০৪ সালে বাংলা জয় করেন। এর মাধ্যমে বাংলায় মুসলিম শাসন শুরু হয়।]

২৪. ভারতীয় ইসলামি সাম্রাজ্যগুলির একমাত্র নারী শাসনকর্তা কে ছিলেন?

ক. ঘষেটি বেগম।

খ. ফাতেমা তুজ জোহুরা।

গ. জুলেখা।

ঘ. রাজিয়া সুলতানা।

উত্তরঃ ঘ.

[ব্যাখ্যাঃ তৎকালীন মুসলিম শাসকদের মধ্যে একমাত্র নারী শাসক ছিলেন রাজিয়া সুলতানা।  তার শাসনকাল ছিলো (১২৩৬- ১২৪০ খ্রীস্টাব্দ)]

২৫. মুইজউদ্দিন গজনি শহর দখল করেন কত খ্রীস্টাব্দে?

ক. ১১৭৩ খ্রীস্টাব্দে।

খ. ১১৭৪ খ্রীস্টাব্দে।

গ. ১১৭৫ খ্রীস্টাব্দে।

ঘ. ১১৭৬ খ্রীস্টাব্দে।

উত্তরঃ ক.

[ব্যাখ্যাঃ মুসলমানদের অন্যতম শাসক মুইজউদ্দিন (মুহাম্মদ বিন ঘুরি) গজনি শহর দখল করেন ১১৭৩ খ্রীস্টাব্দে।]

২৬. মুইজউদ্দিন মুলতান দখল করেন কত খ্রীস্টাব্দে?

ক. ১১৭৩ খ্রীস্টাব্দে।

খ. ১১৭৪ খ্রীস্টাব্দে।

গ. ১১৭৫ খ্রীস্টাব্দে।

ঘ. ১১৭৬ খ্রীস্টাব্দে।

উত্তরঃ গ.

[ব্যাখ্যাঃ লুদি বংশের কাছ থেকে মুইজউদ্দিন মুলতান শহর দখল করেন ১১৭৫ খ্রীস্টাব্দে। ]

২৭. দিল্লির সালতানাত কত বছর স্থায়ী ছিলো?

ক. ৩০০ বছর।

খ. ৩২০ বছর।

গ. ৩৪০ বছর।

ঘ. ৩৬০ বছর।

উত্তরঃ খ.

[ব্যাখ্যাঃ ১২০৬ থেকে ১২৫৬ সাল পর্যন্ত একাধিক মুসলিম সাম্রাজ্যগুলিকে দিল্লির সালতানাত বলা হয়। যা ৩২০ বছর স্থায়ী ছিলো।]

২৮. খিলজী রাজবংশের শাসনকাল কত বছর?

ক. ২০ বছর।

খ. ৩০ বছর।

গ. ৪০ বছর।

ঘ. ৫০ বছর।

উত্তরঃ খ.

[ব্যাখ্যাঃ খিলজী রাজবংশের শাসনকাল ছিলো দীর্ঘ ৩০ বছর (১২৯০- ১৩২০)]

২৯. দিল্লীর প্রথম সুলতান কে ছিলেন?

ক. মুহাম্মদ ঘুরি।

খ. মুহাম্মদ বিন কাশেম।

গ. কুতুবউদ্দিন আইবেক।

ঘ. সুলতান বাবর।

উত্তরঃ গ.

[ব্যাখ্যাঃ কুতুবউদ্দিন আইবেক ছিলেন দিল্লীর প্রথম সুলতান। তিনি উত্তর ভারতের বিশাল অঞ্চল জয় করেন।]

৩০. বারো ভুঁইয়া-র সংখ্যা ছিলো কতজন?

ক. ১২ জন।

খ. ১৩ জন।

গ. ১১ জন।

ঘ. উপরের কোনোটিই নয়।

উত্তরঃ খ.

[ব্যাখ্যাঃ সম্রাট আকবরের আমলে বাংলার বিভিন্ন অঞ্চলের শাসক বা জমিদারদের বলা হতো বারো ভূঁইয়া। যার সংখ্যা ছিলো ১৩ জন।]

5 COMMENTS

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here